সাকিবের পরিবর্তনের গল্প

ভূতের গলি ডেস্ক:  মানুষ কখন পরিবর্তন হয় তা একমাত্র আল্লাহই ভালো জানেন । কখন মানুষ হেদায়েত পায় তা আমরা কেই জানিনা ।

সাকিবের গল্পটাই হয়তো অনেকটা এরকম। হঠাৎ করেই তার মাঝে দেখা যাচ্ছে আমূল পরিবর্তন।ম মুখে সুন্নাতী দাড়ি। যবানে দ্বীনি কথাবার্তা। বেশভূষায়ও ভালো        পরিবর্তন।

কিভাবে হলো তাইর এই পরিবর্তন? এর মূলেই কিইবা আছে।

যে সাকিবকে আমরা সবাই একরোখা হিসেবে চিনতাম। একটু ঘাড়-তেড়া। এমন সাকিবকেই আমরা চিনতাম।

কিন্তু সেই সাকিব কি এখন আছে আগের মতো ?

 

সাকিব আল হাসান, হজ, সৌদি আরব,

.
শুনা যাক তার মুখেই সেই পরির্তনের কথা: এক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণে এসে সাকিব বলে তার সেই পরিবর্তনের কথা।

সিপিএল খেলতে যাওয়ার আগে তার সৌদি এম্বাসি থেকে  তার কাছে রাজকীয় সম্মাননায় হজ্ব করার প্রস্তাব আসে। তিনি তখন কোন কিছূই চিন্তা ভাবনা না করেই হ্যা বলে দেয়। অথচ তার সামনেই ছিল ত্রিশ হাজার ডলারের চুক্তি।

তিনি এই চুক্তি ফেলেই চলে যান হজ্বে।

সেখান থেকেই শুরু হয় তার পরিবর্তনের সূচনা।

এছাড়াও এর পিছনে রয়েছে কয়েকজন খেলোয়ারের হাত পাকিস্তান টিমে প্লেয়ারদের মধ্যে ইসলামীক মূল্যবোধ তৈরিতে সাইদ আনোয়ার, সাকলাইন মুসতাকদের বেশ অবদান আছে। যান ফলস্রুতিতে ‘ইউসুফ ইউহানা’ পরবর্তীতে খৃষ্টধর্ম ত্যাগ করে রিভার্টেড হন ‘মহাম্মদ ইউসুফ’-এ।

বাংলাদেশ টিমেও এমন মূল্যবোধ ধরে রাখা এবং তৈরিতে মাহমুদুল্লাহ ভাইর অবদান অপরিসীম। অনান্য খেত্রে টিম বাংলাদেশে মাশরাফি ভাইর অবদান অনসিকার্য হলেও ধর্মীয় ব্যাপার গুলোতে রিয়াদ ভাই অন্যন্য এবং মার্জিত। আর মাহমুদুল্লাহর রিয়াদ ভাইকে সবসময় সাপোর্ট দিয়ে যান মাশরাফি, মুশফিক রা..

….

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *