আমরা আদালাতকে জিজ্ঞাস করে বাবরী মসজিদ ভাঙ্গিনি

অযোধ্যায় বাবরী মসজিদ-রাম মন্দির ইস্যুতে উগ্রহিন্দুত্ববাদীদের চাপের মুখে পড়েছে বিজেপি নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্রীয় সরকারের সহযোগী শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত বলেছেন, ‘আদালত অযোধ্যা ইস্যুতে কী রায় দেবে তা নিয়ে আমাদের মনোযোগ নেই। আমরা আদালতকে জিজ্ঞেস করে বাবরী মসজিদের কাঠামো ভেঙে ফেলিনি।’

সঞ্জয় রাউতের কথায়, ‘আদালতের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে করসেবকদের হত্যা করা হয়নি। আমরা চাই অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ হোক। আমরা পাকিস্তানের করাচিতে রাম মন্দির নির্মাণের কথা বলছি না।’ শিবসেনার তরফে সঞ্জয় রাউতের এহেন মন্তব্য প্রকাশ্যে আসার পর শুরু হয়েছে তুমুল সমালোচনা। সোশ্যাল সাইট উত্তাল হয়ে উঠেছে নানা তর্ক-বিতর্কে।
…………………….
আরও পড়ুন

কলকাতার মহেশ্বরী ভবনে বৃহস্পতিবার থেকে বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চার জেলা নেতৃত্বদের নিয়ে দুইদিনের প্রশিক্ষণ শিবির হচ্ছে। বিভিন্ন বিজেপি নেতা এদিন
বারবার ‘মোদির সংখ্যালঘু উন্নয়ন’ নিয়ে কথা বলেন। রাজ্যের কোনও রাজনৈতিক দল মুসলিমদের উন্নয়ন করেনি বলেও অভিযোগ করেন দিলীপ ঘোষ, রাহুল সিনহা সহ বিভিন্ন বিজেপি নেতা।

বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চার সভাপতি আলি হোসেন বলেন,” রাজ্যে সংখ্যালঘুদের অনেক নেতা বিভিন্ন কারণে বিজেপিতে এসেছেন। সামনে লোকসভা নির্বাচন। তার আগে মোর্চার নেতাদের দলের নীতি ও আদর্শ সম্পর্কে আরো বেশি করে জানানো উচিত। পার্টি সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা না থাকলে মানুষকে তাঁরা বোঝাতে পারবেন না। তাই দুইদিন ধরে প্রশিক্ষণ শিবিরের আয়োজন করা হয়েছে। এখান থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজ নিজ এলাকায় দল সম্পর্কে প্রচার করবেন সংখ্যালঘু নেতারা।”

বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ রাজ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল মুসলিমদের নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করলেও উন্নয়ন হয়নি বলে জানান। ভাজপার নেতারা প্রশ্ন করছেন, পশ্চিমবঙ্গেতো বিজেপি নেই তাহলে এখানকার মুসলিমরা পিছিয়ে কেন? উপস্থিত ছিলেন তিন তালাক বন্ধের দাবিতে আন্দোলন করা ইসরাত জাহান,সিপিএমের প্রাক্তন বিধায়ক মাহফুজা খাতুন প্রমুখ।

তবে এদিন সংখ্যালঘু ভোট কিভাবে মিলবে তারই কৌশল শেখানো হয়েছে।

আসলে মুসলিম ভোট ছাড়া বাংলায় যেতা সম্ভব নয়,বুঝছে বিজেপিও। তাই মুসলিম মন জয় করার চেষ্টা চলছে। কিন্তু সাম্প্রদায়িক এই দলটি কোনও দিন মুসলিম ও দলিতদের মন জয় করতে পারবে না বলে অনেকে মনে করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *