সনদ নিয়ে কি বললো বাবু নগরী

সনদ বিষয়ে যা বললেন আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী সাহেব দা.বা.

আগে বিভিন্ন সময় আমার কাছে ঢাকা ভার্সিটি চিটাগাং ভার্সিটি থেকে বিভিন্ন ছেলেরা পিএইচডির থিসিসের বিভিন্ন তথ্যের জন্য আসতো এখনতো শিক্ষা ব্যবস্থাই নাস্তিক্যবাদে ভরা তাই এখন আর তাদের প্রয়োজন হয়না। , তো তারা আমার রুমে এসে পরে থাকতো। তারাতো আমার দেয়া তথ্যগুলো দিয়ে থিসিস তৈরী করে ডক্টরেটের সনদ নিবে। কিন্তু আমার কি কোন ডক্টরেটের সনদ আছে? আরে! প্রাইমারী সনদওতো নাই আমার! তাহলে কেন আমার মতো সনদ বিহীন লোকের কাছে তারা আসে?

এইযে এখন আমাদের মৌলভীরা সব সনদের পিছনে দৌড়াচ্ছে। এর উপকারিতা অনুপকারিতা সম্পর্কে এনাদের কোন চিন্তা আছে? কি ফায়দা হবে যদি এই সনদ আমাদেরকে আল্লাহ নির্ভরতা থেকে বিমুখ করে সনদ নির্ভর বানিয়ে দেয়?! আমাদের আকাবীরে দেওবন্দ এতোদিন কীভাবে চলেছেন? এতো বড় বড় বুযুর্গরা তৈরী হয়েছিলেন, বিশ্বের বুকে এক নামে প্রসিদ্ধ হয়েছেন, তাদেরতো কোন সনদ ছিলোনা! তারা কীভাবে চলেছে? আমরা কোন্ দিকে যাচ্ছি? আমাদের ভবিষ্যৎ কোথায়?!!!
আহহা…

আসলে এই দুনিয়াতে যোগ্যতা ছাড়া কোন দাম নাই। আসল হলো কবুলিয়্যাত এবং কাবিলিয়্যাত।
এই সনদ যদি আমাদেরকে সুদ ঘুষ ইত্যাদি হারামের দিকে নিয়ে যায় তাহলে কি ফায়দা হবে এই সনদ দিয়ে? দশ বারো বছর সুদ ঘুষকে বলে এসেছেন হারাম হারাম হারাম!!! এখন সনদ নিয়ে চাকুরীর শুরুর বিসমিল্লাহতেই যদি হারাম দিয়ে শুরু করেন, তাহলে কি হবে এই পড়াশোনা দিয়ে?

এই সনদ মাত্র দিলো, এখনই সুদ ঘুষ সহ বিভিন্ন রকমের দেনদরবারী শুরু হয়ে গেলো। আমি কোন ধারণাভিত্তিক কথা বলছিনা, আমার কাছে সব প্রমাণ আছে। এই কয়েকদিন আগেও আমাদের এক ছাত্র ইসলামিক ফাউন্ডেশনে জয়েন হতে গিয়েছে, তার কাছে সনদ পত্র সব আছে, পরীক্ষায়ও টিকেছে। কিন্তু তাকে একান্ত রুমে নিয়ে বলা হয়েছে “তোমার সব ঠিক আছে, তবে তুমি ঢুকতে চাইলে এক লাখ টাকা দিতে হবে। বাকি সব কাজ আমরা করে দিবো..”

কি লাভ এই সনদ দিয়ে?
আমাদের তাওয়াক্কুল বরবাদ করে দিবে এই সনদ। খুব আশংকা হয় যে এই সনদ পেয়ে সবাই সনদ নির্ভর হয়ে যাবে, এবং আলামতে তাই দেখা যাচ্ছে, তখন আল্লাহর সাহায্য ও মদদ বন্ধ হয়ে যাবে।
আমাদের আলেম ওলামারা যেই সুখে শান্তিতে আছে! ৭০০০ টাকা বেতনের চাকুরী করে, কিন্তু আল্লাহ্ এতো বরকত দেন যে ৭০ হাজার টাকা বেতনের চাকুরীতেও এতো শান্তি নেই! আল্লাহর উপর তাওয়াক্কুল শেষ হয়ে সনদের উপর যখন ভরসা চলে আসবে, তখন এই বরকতও শেষ হয়ে যাবে…..
আর আমাদের সনদ বিহীন ওলামায়ে কেরামতো বেকারও নেই! সত্যিকারের আলেম জাতির কোন না কোন খেদমতে অবশ্যই লেগে আছে। আমিতো বরং চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিতে পারবো যে “আমাদের সনদ বিহীন আলেমদের তুলনায় তোমাদের সনদধারী লোকরা বেশী বেকার।” তাহলে কেন এই সনদ নিয়ে আপনারা এতো লাফালাফি করছেন। আপনারা কি মনে করেন যে আপনাদেরকে কলেজ ভার্সিটির প্রফেসর পদে নিয়োগ দিবে? নাকি মনে করেন যে আপনাদেরকে ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার পদে কেউ নিয়োগ দিবে? আপনাদেরকেতো ঠিকই এই মসজিদ মাদরাসাতেই থাকতে হবে! আর কি হবে বলেন? ভবিষ্যৎ বড় অন্ধকার দেখা যাচ্ছে। কথা যেটা হক্ব সেটাতো বলতে হবেই, পরোয়া করবো কেন?

তারিখঃ 29-10-2018 [4:15 PM]
স্থানঃ কাওয়াইদ ফী উলূমিল হাদীস এর দরস।

কপিঃ যুবাইর মাহমুদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *