উদ্ধার হওয়া আরিফ যা বললেন

রাজধানী ঢাকার বনানী এলাকায় এফ আর টাওয়ারে বৃহস্পতিবার দুপুরে আগুন লাগার পর তা থেকে বাঁচতে ভবন থেকে লাফিয়ে পড়ে এ পর্যন্ত একজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।

ঘটনাস্থলের আকাশজুড়ে এখনো কালো ধোঁয়া দেখা যাচ্ছে। সেখানে বিবিসির সংবাদদাতা কাদির কল্লোলের সাথে কথা হয় মোহাম্মদ আরিফের। এফ আর টাওয়ারের এক প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন তিনি।

প্রতিদিনের মত আজও সকালে কাজে এসেছিলেন। আগুন লাগার পর আর বের হতে পারেননি।

কয়েক ঘণ্টা আটকে থাকার পর দমকল বাহিনীর ক্রেনে করে বিকেল পৌনে চারটার দিকে নিচে নেমে এসেছেন তিনি

বেরিয়ে আসতে পেরেছি, এই বড়। ভেতরে দেখেছি কেবল জীবন আর মৃত্যুর তফাৎ। এর বেশি বলতে পারবো না।”

এর আগে ঘটনাস্থল থেকে বিবিসির সংবাদদাতারা জানিয়েছেন, ভবনের বিভিন্ন তলা থেকে বাঁচার আকুতিতে লোকজন হাত নাড়ছিলেন।

অনেকে পরিবার-স্বজন, সহকর্মী ও বন্ধুদের ফোনে জানিয়েছেন নিজেদের আটকে পড়ার খবর।

রাস্তায় মানুষের ভিড় ছাপিয়ে সাইরেন বাজিয়ে দ্রুতগতিতে অ্যাম্বুলেন্সের আসা-যাওয়া চলছে।

ভবন থেকে বাঁচার চেষ্টায় চার/পাঁচজনকে লাফ দিয়ে পড়তে দেখেছেন বিবিসি বাংলার সংবাদদাতারা।

সেখানে ফায়ার সার্ভিসের ১৭টি ইউনিট কাজ করছে, যোগ দিয়েছে সেনা ও বিমান বাহিনী।

ভবনের দশতলা থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন ঢাকা বিভাগ ফায়ার সার্ভিসের জোন-২ এর দায়িত্বরত কর্মকর্তা।

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয়, বনানী ১৭ নম্বর সড়কের এফ আর টাওয়ারে ১৯ তলা ভবনের ৭/৮ তলায় আগুন লাগে।

ভবনের ভেতরে লোকজন আটকা পড়াদের উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। সূত্র: বিবিসি। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *